ঢাকাSaturday , 7 November 2020
  1. অপরাধ-দূনীর্তি
  2. আইন-আদালত
  3. আর্ন্তজাতিক
  4. কৃষি ও অর্থনীতি
  5. খেলাধুলা
  6. চিকিৎসা
  7. জাতীয়
  8. দেশজুড়ে
  9. ধর্ম
  10. বিনোদন
  11. মতামত
  12. রাজনীতি
  13. লাইফস্টাইল
  14. শিক্ষা
  15. সম্পাদকীয়

অস্ত্র, বিস্ফোরক দ্রব্য এবং বোমা তৈরির সরঞ্জামসহ নব্য জেএমবি’র চার সদস্য আটক – JN7

NAYAN AHMMED
November 7, 2020 7:01 am
Link Copied!

হৃদয় আহম্মেদ, স্টাফ রিপোর্টার:

বগুড়া জেলা গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) পুলিশের অভিযানে একটি ৭.৬৫ বিদেশি পিস্তল, একটি পিস্তলের ম্যাগাজিন, ২ রাউন্ড ৭.৬৫ পিস্তলের গুলি, একটি দেশি তৈরি ওয়ান শুটার গান, দুইটি কার্তুজ, ৩টি অত্যাধুনিক বার্মিজ চাকু, ১টি চাপাতি, ১ কেজি বিস্ফোরক দ্রব্য (পটাশিয়াম ক্লোরেট), ২টি লাল টেপ, ৪টি ব্যাটারি, কিছু পরিমাণ তারসহ চারজন নব্য জেএমবি’র সদস্য আটক করা হয়েছে।

শনিবার (৭ নভেম্বর) দুপুর ১টার সময় বগুড়া – রংপুর মহাসড়কের চন্ডিহার এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে ৪ জন আসামিকে উপরোক্ত অস্ত্র ও সরঞ্জামসহ আটক করা হয়। আটককৃতরা হলো, গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর থানার তরশ্রীরামপুর গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে তানভীর আহম্মেদ ইব্রাহিম (২৫) জেএমবি’র আইটি শাখার সদস্য, বর্তমান ঠিকানা ঢাকা ৮ ব্লক এল দক্ষিণ বনশ্রী খিলগাঁও। টাঙ্গাইল জেলার ভুয়াপুর থানার জগতপোড়া গ্রামের খন্দকারের ছেলে মোঃ জাকারিয়া জামিল (৩১) পদবি সাংগঠনিক সম্পাদক মিডিয়া শাখার প্রধান, বর্তমান ঠিকানা ঢাকা শেরেবাংলানগর সি পশ্চিম রাজাবাজার। ময়মনসিংহ জেলার চকশ্যামরামপুর থানা এলাকার মোঃ আব্দুর রহমানের ছেলে মোঃ আতিকুর রহমান (২৮) নব্য জেএমবি’র সক্রিয় সদস্য। একই এলাকার মোঃ আব্দুর হাকিমের ছেলে মোঃ আবু সাঈদ (৩২) নব্য জেএমবি’র সক্রিয় সদস্য।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটক আসামিরা নিজেদের নব্য জেএমবি’র সক্রিয় কর্মী হিসেবে স্বীকার করে এবং এখানে মিটিং করে পরবর্তী কার্যক্রম নির্ধারণ করতে চাচ্ছিল বলে জানায়।

আটক ব্যক্তিদের মধ্যে মোঃ তানভীর আহম্মেদ ( ইব্রাহিম) জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আইটি বিভাগের ছাত্র। এ বছরের শুরুতে জানুয়ারি মাসে আশুলিয়াতে তার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ জঙ্গি পুস্তক, ইলেকট্রনিক ও ড্রোন তৈরির সরঞ্জামসহ তার স্ত্রীকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। উক্ত ঘটনায় ঢাকা জেলার আশুলিয়া থানায় দায়েরকৃত মামলা নং-৩৫, তারিখ-১৪/০১/২০২০ খ্রিঃ ধারা-সন্ত্রাস বিরোধী আইন ২০০৯ এর সে একজন পলাতক আসামি এবং ঘটনার পর থেকে সে পলাতক ছিল। সে ড্রোন তৈরির মাধ্যমে নাশকতার পরিকল্পনা করছিল বলে জানা যায়।

আসামি মোঃ জাকারিয়া জামিল নব্য জেএমবি’র মিডিয়া শাখার প্রধান দায়িত্বশীল। জঙ্গি সংক্রান্ত অন লাইনে প্রকাশিত বিভিন্ন প্রকাশনাগুলোকে সে আরবি থেকে বাংলায় অনুবাদ করে প্রচার করে। জামিলও আশুলিয়ার মামলার পলাতক আসামি।

আসামি মোঃ আতিকুর রহমান নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের ছাত্র। সে নতুন সদস্য এবং অর্থ সংগ্রহের দায়িত্বপ্রাপ্ত। সর্বশেষ ব্যক্তি মোঃ আবু সাঈদ যুদ্ধ করার জন্য মধ্যপ্রাচ্য যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। উদ্ধার হওয়া বিস্ফোরক দিয়ে ৫০টির মতো উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন বোমা বানানো সম্ভব।

এ বিষয়ে শিবগঞ্জ থানায় অস্ত্র, বিস্ফোরক দ্রব্য এবং সন্ত্রাস বিরোধী আইনে পৃথক পৃথক মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে। আটক ব্যক্তিদের আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।