ঢাকাFriday , 27 November 2020
  1. অপরাধ-দূনীর্তি
  2. আইন-আদালত
  3. আর্ন্তজাতিক
  4. কৃষি ও অর্থনীতি
  5. খেলাধুলা
  6. চিকিৎসা
  7. জাতীয়
  8. দেশজুড়ে
  9. ধর্ম
  10. বিনোদন
  11. মতামত
  12. রাজনীতি
  13. লাইফস্টাইল
  14. শিক্ষা
  15. সম্পাদকীয়

চুয়াডাঙ্গায় পৃথক ৩টি হত্যা মামলায় ৩জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান – JN7

NAYAN AHMMED
November 27, 2020 6:14 pm
Link Copied!

নিজস্ব প্রতিবেদক:

চুয়াডাঙ্গায় পৃথক ৩টি হত্যা মামলায় ৩জন আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৬শে নভেম্বর) বিকালে আসামিদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেন চুয়াডাঙ্গা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক রবিউল ইসলাম।

দণ্ডাদেশপ্রাপ্তরা হলো চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার বাঁকা ইউনিয়নের কন্দর্পপুর গ্রামের আনোয়ার হোসেন আনার, দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা রামনগর গ্রামের জিয়ারুল @ জিয়া এবং সিআইডি সদস্য খুলনার দৌলতপুর থানার মহেশ্বরপাশা গ্রামের অসীম কুমার ভট্টাচার্য্য।

আদালত সূত্রে জানা যায়, জীবননগর উপজেলার কন্দর্পপুর গ্রামের আনোয়ার হোসেন আনারসহ আরও কয়েকজন মিলে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ২০১৮ সালের ৪ জুলাই দুপুরে প্রতিবেশী গিয়াসউদ্দিনকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনার পর নিহতের ভাই বাদী হয়ে জীবননগর থানায় ৭জনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সিরাজুল আলম ২০১৯ সালের ২৫শে ফেব্রুয়ারি আদালতে চার্জশীট প্রদান করেন। সেই মামলায় আসামি আনোয়ার হোসেন আনারকে তার উপস্থিতিতে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং বাকি আসামিদের বেকসুর খালাস প্রদানের রায় দেন বিজ্ঞ বিচারক।

অপর একটি হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করা হয় দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা রামনগর গ্রামের জিয়ারুল ওরফে জিয়াকে। ২০১২ সালের ১০ ডিসেম্বর রাতে জীবননগর উপজেলার উথলী ইউনিয়নের রতিরামপুর গ্রামের আব্দুর রহিমকে বোমা মেরে এবং কুপিয়ে হত্যার দায়ে জীবননগর থানার পুলিশ তাকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করে। ২০১৪ সালের ৩১শে জানুয়ারি তার বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট প্রদান করেন জীবননগর থানার এসআই শফিকুল ইসলাম। আব্দুর রহিমকে হত্যার দায়ে জিয়ারুল ওরফে জিয়াকে যাবজ্জীবন এবং অস্ত্র মামলায় ১০ বছর কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করেন বিজ্ঞ বিচারক। এ সময় আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া আলমডাঙ্গা মাদ্রাসাপাড়ায় শাশুড়ি শেফালী অধিকারীকে হত্যার দায়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করা হয় নিহতের জামাই অসীম কুমার ভট্টাচার্য্যকে। আসামি অসীম কুমার ভট্টাচার্য্য খুলনার দৌলতপুর থানার মহেশ্বরপাশা গ্রামের বাসিন্দা এবং পেশায় সিআইডি সদস্য ছিলেন। ২০১৯ সালের ৮জুন রাতে অসীম কুমার ভট্টাচার্য্য তার শাশুড়ি শেফালী অধিকারীকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় নিহতের স্বামী সদানন্দ অধিকারী আলমডাঙ্গা থানা মামলা দায়ের করলে একই বছরের ২৭ জুন তার বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট প্রদান করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সাইফুল ইসলাম। আসামির উপস্থিতিতে তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করেন আদালতের বিজ্ঞ বিচারক।

রায় ঘোষণার পরে কড়া নিরাপত্তার মধ্যদিয়ে আসামিদের চুয়াডাঙ্গা জেলা কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। এদিকে মামলার রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন নিহতের আত্মীয় স্বজনেরা।