ঢাকাThursday , 11 March 2021
  1. অপরাধ-দূনীর্তি
  2. আইন-আদালত
  3. আর্ন্তজাতিক
  4. কৃষি ও অর্থনীতি
  5. খেলাধুলা
  6. চিকিৎসা
  7. জাতীয়
  8. দেশজুড়ে
  9. ধর্ম
  10. বিনোদন
  11. মতামত
  12. রাজনীতি
  13. লাইফস্টাইল
  14. শিক্ষা
  15. সম্পাদকীয়

চুয়াডাঙ্গায় যুব উন্নয়ন কেন্দ্রের ছাত্রাবাস থেকে চুরি হওয়া ৩০টি ফ্যান উদ্ধার

shomrat hossain
March 11, 2021 10:11 pm
Link Copied!

জয় নিউজ সেভেন ।। চুয়াডাঙ্গা সদর থানা পুলিশ বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে যু্ব উন্নয়ন অধিদপ্তরের ছাত্রাবাস থেকে চুরি হয়ে যাওয়া ৩০টি চোরাই বৈদ্যুতিক সিলিং ফ্যান উদ্ধার করেছে। সেই সাথে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছে দুই আসামি। গ্রেফতারকৃতরা হলো চুয়াডাঙ্গা সদর থানাধীন নূরনগর গ্রামের স্টেডিয়াম পাড়ার মোঃ আঃ রহমান লিটনের ছেলে মোঃ আঃ ওদুদ (১৭) এবং জাফরপুর গ্রামের মালোপাড়ার খন্দকার মতিয়ার রহমান টোটনের ছেলে খন্দকার রিফাত আহম্মেদ মুমিত (১৬)। বৃহস্পতিবার (১১ই মার্চ) বেলা ২টা ৩০ মিনিটের সময় আসামিদের গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদের পর তাদের নিজ নিজ বাড়ী হতে এসব বৈদ্যুতিক সিলিং ফ্যান উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ জানায়, চুয়াডাঙ্গা সদর থানাধীন জাফরপুর গ্রামে অবস্থিত যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের পাঁচ তলা ছাত্রাবাসের ২য় তলা থেকে ৫ম তলার বিভিন্ন কক্ষ হতে গত ১লা মার্চের পূর্বে যেকোন সময় লক্ষাধিক টাকার মোট ৪৮টি বৈদ্যুতিক সিলিং ফ্যান চুরি হয়ে গেছে মর্মে যুব উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ গত ১লা মার্চ চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে ফ্যান চুরির অভিযোগ পেয়ে চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার মোঃ জাহিদুল ইসলামের নির্দেশে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোঃ জাহাঙ্গীর আলম এবং সদর থানার ওসি আবু জিহাদ ফকরুল আলম খানসহ পুলিশের একটি চৌকস টিম।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর বিষয়টি গুরুত্বের সাথে নিয়ে চোরাই ফ্যনগুলো উদ্ধারের জন্য অভিযান শুরু করে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুর ২টা ৩০ মিনিটের সময় মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা সদর থানার এসআই মোঃ জাহাঙ্গীর আলম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে চুয়াডাঙ্গা পৌরশহরের দুই যুবককে আটক করেন। আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদের পর তাদের স্বীকারোক্তি ও দেখানো মতে একইদিন বিকাল পৌনে ৫টার সময় তাদের নিজ নিজ বাড়ি হতে মোট ৩০টি চোরাই বৈদ্যুতিক সিলিং ফ্যান উদ্ধার করা হয়।

আটককৃতরা পুলিশকে জানায়, যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে বিগত দিনে প্রশিক্ষণের সময় তারা ফ্যানগুলো চুরি করার পরিকল্পনা করে। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময় তারা ফ্যানগুলো চুরি করে এবং বিক্রির উদ্দেশ্যে নিজেদের দখল ও নিয়ন্ত্রণে রাখে। তবে এ ঘটনায় যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের কেউ জড়িত আছে কিনা সে বিষয়ে জানার জন্য অনুসন্ধান চালাচ্ছে পুলিশ। সেই সাথে চুরি হওয়া বাকি ফ্যানগুলো উদ্ধারের জন্য কাজ করছে পুলিশ। ফ্যান উদ্ধার এবং আসামিদের গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ওসি আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান। অত্যন্ত বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়ে এমন একটি ক্লুলেস ঘটনার রহস্য উদঘাটন ও চোরাই মালামাল উদ্ধার করতে সমর্থ হওয়ায় পুলিশ এখন অতীতের তুলনায় অনেক দক্ষ বলে মনে করছেন চুয়াডাঙ্গা জেলাবাসী।