ঢাকাThursday , 11 March 2021
  1. অপরাধ-দূনীর্তি
  2. আইন-আদালত
  3. আর্ন্তজাতিক
  4. কৃষি ও অর্থনীতি
  5. খেলাধুলা
  6. চিকিৎসা
  7. জাতীয়
  8. দেশজুড়ে
  9. ধর্ম
  10. বিনোদন
  11. মতামত
  12. রাজনীতি
  13. লাইফস্টাইল
  14. শিক্ষা
  15. সম্পাদকীয়

জীবননগরের উথলী থ্রী-স্টার সমবায় সমিতির অফিসে লুটপাট ও ভাংচুর | JN7

Rasel Munna
March 11, 2021 9:12 am
Link Copied!

জয় নিউজ সেভেন ।। চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার উথলী বাজারে অবস্থিত থ্রী-স্টার সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেডের প্রধান কার্যালয়ে উথলী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সেনেরহুদা গ্রামের মৃত কিয়ামদ্দিনের ছেলে জিনারুল ইসলাম জেবুর নেতৃত্বে হামলা, ভাংচুর, লুটপাট করেছে দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত ১৫-২০ জনের একদল দুর্বৃত্ত। এই হামলা ও লুটপাটে সমিতির অফিসে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতিসহ নগদ কয়েক লক্ষ টাকা লুট হয়েছে। হামলার কারণে সমিতির অফিসে থাকা স্টাফসহ উথলী বাজারের অন্যান্য দোকানীরা ভীত-সন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে। বুধবার (১০ই মার্চ) রাত ৯টার দিকে জীবননগর উপজেলার উথলী বাজারস্থ থ্রী-স্টার সঞ্চয় ও সমবায় সমিতির অফিসে এ ঘটনা ঘটে।

থ্রী-স্টার সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেড সূত্রে জানা যায়, অন্যান্য দিনের মতো সমিতির অফিসের ম্যানেজার হুমায়ন এবং মাঠকর্মী রিদয় আহম্মেদ তাদের অফিসিয়াল কাজে ব্যস্ত ছিলো। সমিতির পরিচালক বাইরে থাকায় রাত আনুমানিক ৯টার একটু পরে হঠাৎ বিদ্যুতের লোডশেডিং হলে উথলী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জিনারুল ইসলাম জেবু পূর্ব-পরিকল্পিতভাবে দলবল নিয়ে লোডশেডিং এর সুযোগে সমিতির অফিসে ঢুকে স্টাফদের গালিগালাজ ও মারধর করে নগদ কয়েক লক্ষ টাকা লুটে নেয়। এ সময় তাদের বাধা দিতে গেলে জেবু ধারালো অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে সবাইকে চুপ থাকতে বলে। বিষয়টি অফিসে থাকা অন্য ১জন পুলিশকে ফোনের মাধ্যমে জানালে তারা পুলিশের ভয়ে লুট করা টাকাসহ দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

পুলিশ এসে সমিতির অফিসের স্টাফ ও আশপাশের দোকানদারদের মুখে ঘটনার বিবরণ শুনে অভিযুক্তদের বাড়িতে গেলেও অভিযুক্তরা বাড়িতে না থাকায় পুলিশ ফিরে চলে আসে। পরবর্তীতে জানা যায় হামলা ও লুটকারীরা নাটক সাজিয়ে জীবননগর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। তবে অভিযোগকারী তার লিখিত অভিযোগে বিকাশ থেকে টাকা উত্তোলন করে বাড়ি ফেরার পথে হামলার শিকার হন এমন কথা উল্লেখ করলেও ঠিক কি পরিমাণ টাকা উত্তোলন করেছেন এবং কার দোকান থেকে করেছেন এবং সেই টাকা খোয়া গেছে কিনা এসব কিছুই উল্লেখ করেননি। এছাড়া তিনি যে ঘটনাস্থলের কথা উল্লেখ করেছেন সেখানে উপস্থিত হয়ে তাকে মারধরের কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। এমনকি ওই স্থানে এমন কোন ঘটনা ঘটেছে কিনা তা আশপাশের লোক কেউই জানেনা।

তবে থ্রী-স্টার সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতির অফিসে হামলা হয়েছে এমন তথ্য সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেছে। হামলার শিকার হওয়া থ্রী-স্টার সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতির মাঠকর্মী সেনেরহুদা গ্রামের রিদয় আহম্মেদ জানান, জেবুর নেতৃত্বে আমার কর্মক্ষেত্র থ্রী-স্টার সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতির অফিসে হামলা ও লুট করা হয়েছে। সে আগে থেকেই জানতো ওই সময় অফিসে গেলে অনেক টাকা পাওয়া যাবে। লুটের পাশাপাশি সে আমাকে মেরে ফেলার জন্য অফিসের বাইরে আনার চেষ্টা চালালেও লোকজন চলে আসায় তা সম্ভব হয়নি। তিনি আরও বলেন ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও ভুক্তভোগী হওয়ায় জেবু চেয়েছিলো অফিস থেকে বের করে বাইরে নিয়ে গিয়ে আমাকে প্রাণে মেরে ফেলবে যাতে করে অন্যরা ভয়ে আর মুখ খুলতে না পারে। আল্লাহ আমাকে প্রাণে বাঁচিয়ে দিয়েছেন। রিদয় আহম্মেদ আরও জানান, আমি আশাবাদী পুলিশ সঠিক তদন্তপূর্বক হামলা ও লুটকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

এলাকাবাসীরা জানান, জেবু একজন মাদকাসক্ত। তার নামে এলাকায় নানা ধরনের অভিযোগ রয়েছে। বিভিন্ন সময় সে অপরাধ কর্মকাণ্ড করলেও দলের নাম ভাঙিয়ে প্রতিবারই ছাড় পেয়ে যায় জেবু। এছাড়া সে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে দায়েরকৃত মামলার একজন সাজাপ্রাপ্ত আসামি। প্রতিরাতেই সে এলাকার উঠতি বয়সী যু্বকদের নিয়ে গাঁজার আসর বসায় বলে অভিযোগ রয়েছে। মাদকাসক্ত হওয়ার কারণে এ ধরনের হামলা ও লুটপাট করা তার জন্য অস্বাভাবিক কিছু নই। তাকে এখনি থামানো না গেলে ভবিষ্যতে সে আরও বড় বড় অঘটন ঘটাবে বলে এলাকাবাসী আশঙ্কা করছে।

তবে থ্রী-স্টার সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতির পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম জেলার বাইরে থাকায় তার সাথে সরাসরি কথা বলা সম্ভব হয়নি। তবে তার ভাই আলমগীর হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। এ ব্যাপারে জীবননগর থানায় পৃথক দুটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এ বিষয়ে জীবননগর থানার ওসি সাইফুল ইসলাম বলেন, উথলী বাজারে থ্রী-স্টার সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতির অফিসে হামলার খবর শুনে দ্রুত ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় জীবননগর থানা পুলিশ। পরবর্তীতে উভয়পক্ষ বুধবার রাতেই জীবননগর থানায় পৃথক দুটি অভিযোগ দায়ের করেন। উভয়পক্ষের অভিযোগ তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।