ঢাকাTuesday , 16 March 2021
  1. অপরাধ-দূনীর্তি
  2. আইন-আদালত
  3. আর্ন্তজাতিক
  4. কৃষি ও অর্থনীতি
  5. খেলাধুলা
  6. চিকিৎসা
  7. জাতীয়
  8. দেশজুড়ে
  9. ধর্ম
  10. বিনোদন
  11. মতামত
  12. রাজনীতি
  13. লাইফস্টাইল
  14. শিক্ষা
  15. সম্পাদকীয়

জীবননগরে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে বিক্ষুব্ধ জনতার হামলায় ইউএনও আহত | JN7

Rasel Munna
March 16, 2021 1:35 pm
Link Copied!

জয় নিউজ সেভেন ।। ইটভাটার কাজে ব্যবহৃত মাটিভর্তি অবৈধ ট্রাক্টরের চাকায় পিষ্ট হয়ে চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলায় মইদুল ইসলাম নামে আনুমানিক ৪০ বছর বয়সী এক সাইকেল চালকের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় নিহত সাইকেল চালকের এক পুত্র সন্তান গুরুতর আহত হয়েছে। আহত শিশুটিকে জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। মঙ্গলবার (১৬ই মার্চ) দুপুরে উপজেলার হাসাদাহ ইউনিয়নের কাটাপোল গ্রামে এই দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার খবর শুনে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসীর হামলার শিকার হয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম মুনিম লিংকন। হামলায় তার মাথা ফেটে রক্ত বের হয়। তবে বর্তমানে তিনি শঙ্কামুক্ত।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার দুপুরে পার্শ্ববর্তী ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার মান্দারবাড়িয়া ইউনিয়নের শংকরহুদা গ্রামের মৃত শমসেরের ছেলে মইদুল ইসলাম বাইসাইকেলযোগে তার শিশুপুত্র রাসেল (৭) কে নিয়ে মঙ্গলবার দুপুরে তার নিজ শ্বশুরবাড়ি জীবননগর উপজেলার চাকলা গ্রামে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে কাটাপোল গ্রামে পৌঁছালে মাটিভর্তি একটি ট্রাক্টর মইদুলের বাইসাইকেলে ধাক্কা মারলে মাথা থেতলিয়ে যেয়ে তিনি রক্তাক্ত জখম হন এবং তার শিশুপুত্রটির হাত ও পা ভেঙে যায়।এ সময় এলাকাবাসী আহতদের উদ্ধার করে বিক্ষোভ শুরু করে এবং রাস্তা অবরোধ করে ফেলে। খবর পেয়ে অফিসার ফোর্স নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন জীবননগর থানার ওসি মোঃ সাইফুল ইসলাম। তিনি বিক্ষুব্ধ জনতাকে শান্ত করার চেষ্টা করেন এবং আহতদের হাসপাতালে নিয়ে যেয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করাতে চান। কিন্তু বিক্ষুব্ধ জনতা তাতে বাধা দেন এবং দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন। পরবর্তীতে পুলিশ, বাধা উপেক্ষা করে আহত পিতাপুত্রকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসলেও মইদুল ইসলামকে মৃত ঘোষণা করা হয় এবং শিশুপুত্রকে হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনের জন্য জীবননগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম মুনিম লিংকন ঘটনাস্থলে পৌঁছে গাড়ি থেকে নামার সাথে সাথেই বিক্ষুব্ধ জনতাকে তাকে ঘিরে ফেলে এবং তার উপর হামলা চালায়। অবস্থা বেগতিক দেখে তিনি দৌঁড় শুরু করলে বিক্ষুব্ধ জনতা ইউএনওকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে তিনি মাথায় আঘাত পেয়ে রক্তাক্ত জখম হন। এ সময় তিনি পার্শ্ববর্তী একটি বাড়িতে আশ্রয় নিলে সেই বাড়িতেও হামলা চালানো হয়। খবর শুনে দ্রুত ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ইউএনওকে উদ্ধার করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী মোঃ হাফিজুর রহমান হাফিজ। ইউএনও বর্তমানে শঙ্কামুক্ত বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। তবে সরকারি কাজে বাধা ও হামলার ঘটনার জন্য আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসন।স্থানীয়দের অভিযোগ, অবৈধভাবে মাটি ও বালু উত্তোলন এবং বিক্রি করার কারণে প্রতিনিয়ত বেপরোয়া গতিতে ট্রাক্টর চালিয়ে মাটি ও বালু বহন করে ইটভাটাসহ অন্যান্য জায়গায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। কিন্তু প্রশাসন কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ না করার কারণে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটেই চলেছে। আজ একজনকে প্রাণ ও দিতে হলো। প্রশাসনের কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ করলে তারা এসে শুধুমাত্র জরিমানা করে বিষয়টির দায়ভার এড়াচ্ছে। এতেকরে মাটি ও বালু উত্তোলনকারীরা এ সমস্ত কাজ আরও বেশী করে করছে। অবৈধভাবে মাটি ও বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে কার্যকরী ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য একাধিকবার বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় নিউজ, সেইসাথে গ্রামবাসীরা গ্রামের মধ্য দিয়ে দ্রুতগতিতে ট্রাক্টর না চালানোর জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে বার বার অনুরোধ করলেও তাতে কেউ কর্ণপাত না করার কারণে দিন দিন এ সমস্ত মাটি ও বালু উত্তোলনকারীদের সাহস বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে অকালে ঝরে যাচ্ছে তরতাজা একাধিক প্রাণ। অবিলম্বে এ অবস্থার হাত থেকে রেহাই পেতে চাই জীবননগর উপজেলাবাসী।