ঢাকাWednesday , 18 November 2020
  1. অপরাধ-দূনীর্তি
  2. আইন-আদালত
  3. আর্ন্তজাতিক
  4. কৃষি ও অর্থনীতি
  5. খেলাধুলা
  6. চিকিৎসা
  7. জাতীয়
  8. দেশজুড়ে
  9. ধর্ম
  10. বিনোদন
  11. মতামত
  12. রাজনীতি
  13. লাইফস্টাইল
  14. শিক্ষা
  15. সম্পাদকীয়

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে যমুনা নদী থেকে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন – JN7

NAYAN AHMMED
November 18, 2020 4:16 pm
Link Copied!

 

মিজানুর রহমান, টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ


বর্ষা মওসুমে যমুনার ভাঙনে গৃহহীন হয়ে পড়ে শত শত পরিবার। নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায় হাজার হাজার একর ফসলি জমি। আর শুষ্ক মওসুমে চলে অবৈধ বাংলা ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের মহোৎসব। এর ফলে খালি হয়ে যাচ্ছে নদীর তলদেশ। সরজমিনে এমন চিত্র দেখা যায় টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার যমুনা নদীর পূর্ব পাড়ে।

কিছুতেই থামছে না বাংলা ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন। এতে করে একদিকে যেমন হুমকিতে পড়ছে দেশের সর্ববৃহৎ স্থাপনা বঙ্গবন্ধু সেতু, অন্যদিকে ভাঙন আতঙ্কে দিন কাটে যমুনা পূর্বপাড়ের মানুষের। বাংলা ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের বিরুদ্ধে স্থানীয় প্রশাসন মাঝে মধ্যে অভিযান চালালেও একদিন পার না হতেই অদৃশ্য কারনে আবার সেই একই চিত্র দেখা যাচ্ছে।
সরজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার সারপলশিয়া, সিরাজকান্দী, লেংড়া বাজার, পাটিতাপাড়া, মাটিকাটা, চিতুলিয়াপাড়া, কষ্টাপাড়া, খানুরবাড়ী, জিগাতলা, বামনহাটা, বাসাইলা, বলরামপুর, তেঘুরিসহ বিভিন্ন পয়েন্টে বাংলা ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোরন করছে এক শ্রেণির অসাধু বালুখেকো। এতে করে নদী গর্ভে চলে যাচ্ছে ফসলী জমি। হুমকিতে রয়েছে বসতভিটা।

স্থানীয়দের অভিযোগ, নদীতে বাংলা ড্রেজার বসিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কারণে বসতভিটা ও ফসলি জমি হুমকির মুখে পড়েছে। এসবের বিষয়ে কেউ কথা বললেই আসে নানা ধরনের হুমকি। তাই ভয়ে কেউ মুখ খোলার সাহস পায়না। বসতভিটা ও ফলসি জমি রক্ষায় বাংলা ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন বন্ধ এবং ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় প্রদক্ষেপ গ্রহনের জোর দাবি জানান তারা।

এবিষয়ে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. আসলাম হোসাইন বলেন, যমুনা নদী থেকে বাংলা ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন বন্ধের জন্য আমরা অভিযান অব্যাহত রেখেছি। অতি তাড়াতাড়ি যমুনা নদী থেকে সকল ধরনের বাংলা ড্রেজার অপসারণ করা হবে।